তন্ত্র-মন্ত্রের মাধ্যমে নারীদের ‘যৌন হয়রানি’, হাফেজ আটক

বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলায় ঝাড়-ফুক ও তন্ত্র-মন্ত্রের মাধ্যমে নিঃসন্তান নারীদের যৌন হয়রানির অভিযোগে হাফেজ রোমান ওরফে রুম্মান হাসান (২৪) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার রাতে শিবগঞ্জ উপজেলার বিহার ইউনিয়নের বিহার ফকিরপাড়া গ্রামে আস্থানা থেকে তাকে আটক করা হয়।

আটকের ‍পর তার আস্তানায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ মৃত মানুষের মাথার খুলি, যৌন উত্তেজক ওষুধ, সমুদ্রের পানি-বালু, কাফনের কাপড়, যাদু টোনা করার সরঞ্জাম ও তাবিজ উদ্ধার করেছে।

স্থানীয়রা জানান, আজাহার আলী ফকির দীর্ঘ দিন ধরে এলাকায় তাবিজ কবজ করে মানুষের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করে আসছিলেন। তার ছেলে রোমান ওরফে রুম্মান হাসান স্থানীয় একটি কওমী মাদ্রাসায় লেখাপড়া শেষ করে তার বাবার সঙ্গে তাবিজ কবজের ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েন।

একপর্যায় রুম্মান বাড়িতেই আস্তানা খুলে বসেন। সেখানে দূর-দূরান্ত থেকে নারীরা বিভিন্ন সমস্যার সমাধান নিতে আসতেন। এ কারণে নিঃসন্তান নারী ও প্রবাসীদের স্ত্রীরা তার বাড়িতে ভিড় জমাতেন। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বিবাদ মিটিয়ে দেওয়া, প্রেমের সস্পর্ক স্থাপন, নিঃসন্তান নারীদের সন্তান লাভের প্রতিশ্রুতি দিতেন। এসব সমস্যা সমাধানের নামে তিনি নারীদের যৌন হয়রানি ছাড়া টাকা পয়সা হাতিয়ে নিতেন। কিন্তু সামাজিক মান সম্মানের ভয়ে কেউ তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করত না।

গতকাল শনিবার শিবগঞ্জ থানার আটমুল ইউনিয়নের চক কানু গ্রামের এক ব্যক্তির অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তার বাড়ি থেকে রুম্মান হাসানকে আটকের পর তার আস্তানায় অভিযান চালায়। এসময় সেখান থেকে মৃত মানুষের মাথার একটি খুলি, যৌন উত্তেজক ওষুধ, যাদুর ঝুলি, বিভিন্ন সরঞ্জাম, তাবিজ কবজ উদ্ধার করে।

এ বিষয়ে শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম জানান, আটকের পর রোমানের বিরুদ্ধে নারীদের যৌন হয়রানির অসংখ্য অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে।